গুড মর্নিং আকাশ ...


সকাল হলেই গুড মর্নিং আকাশের অপেক্ষায় থাকা, ভাল হলে দিন ভাল শুরু হওয়া।  শুধু আমি নয় অনেকেই দেশ-বিদেশের ভিন্ন বিভিন্ন প্রান্ত থেকে অপেক্ষায় থাকেন প্রবাসী মানুষজন।  নাহ্ প্রোগ্রামটির কোনোও ইউটিউব ভার্সান নেই।  অবশ্য থাকলেও যে খুব বেশি দর্শক টানবে তা মনে হয় না, কারণ প্রোগ্রামটির গ্ল্যামার নেই, চটক নেই, তবে রয়েছে সৎ প্রচেষ্টা।  বহু নতুন ও পুরোনো শিল্পীর গান শুনতে পাওয়া যায় এই অনুষ্ঠানে।  কেউ বা নামীদামি, কেউবা গায়কদের গায়ক।  কথাটা বললাম এই অর্থে যাঁদের গায়কেরা শ্রদ্ধা করেন হয়তবা তাঁরা নামীদামি নন।  জানা-অজানা শিল্পীদের মাঝে সময়টা বেশ ভাল কাটে।  শুধু তাই নয় সঞ্চালনার মধ্যেও সততার ছাপ পাওয়া যায়।    

দিনকয়েক আগে রাঘবের গান ছিল ঐ অনুষ্ঠানে।  মূল ফোকাস ছিল গুরুর প্রতি শ্রদ্ধা জানান।  অনেক অজানা কথা এই সব অনুষ্ঠানের মাধ্যমে জানা হয়ে যায়।  হয়ত অনেকেই জানেন কিন্তু আমি জানতাম না যে রাঘব গান শেখা মা'র কাছে ও পরে পন্ডিত শ্রী অজয় চক্রবর্তীর ছাত্র, সংগীত রিসার্চ অ্যাকাদেমীর ছাত্র।  ভাল লাগল রাঘবের গলায় অনেক রাগপ্রধান গান শুনতে।  তারচেয়েও ভাল লাগছিল বন্দিশ গুলো শুনতে।  সেই সময় অদ্ভুত এক কথা মনে হলো আপনাদের সাথে শেয়ার করছি।  যদি অবান্তর মনে হয় অশিক্ষিতের প্রলাপ ভেবে বাতিল করে দেবেন। 


গদ্য যখন পদ্য হয়, পদ্য যখন গান হয়।


এই লাইনটা মনে ভেসে এসেছিল রাঘবের বন্দিশ শুনতে-শুনতে ও সেই বন্দিশ নির্ভর গান শুনতে গিয়ে।  বন্দিশ ভাল লাগলেও গানটা ভাল লাগেনি।  অনেকক্ষন ধরে ভাবছিলাম কারণটা কি?  পরে ওপরের লাইনটা মনে ভেসে এল।  তারপরেই রবীন্দ্রনাথের গানের কথা ভাবতে শুরু করলাম।  মেলালাম অনেকক্ষন ধরে।  ছন্দে ভাসলাম, আনন্দে হাঁটলাম-শুলাম-বসলাম।  বুঝলাম রবিঠাকুরের গদ্য পদ্য হয়েছে, পদ্য গান হয়েছে।    


অনেক সময় এটা হয় যে একটা লেখা পড়ে ভীষণ আনন্দ পাই, কারনটা খুবই সাধারণ।  শব্দগুলি একের পর এক সঠিকভাবে বসে একটা ভাব তৈরি করেছে।  আমরা মাঝেমাঝে বলি ঠিক যেন কবিতা, অর্থে শব্দগুলি একটার পর একটা সঠিকভাবে বসে একটা লয়-ছন্দ তৈরি করেছে যা আমাদের আনন্দ দিচ্ছে।  খুবই সাদামাটা বিশ্লেষণ, কেউ হয়ত বলবেন অশিক্ষিতের প্রলাপ।  সে যাইহোক আপনি থাকুন আপনাতে, আমি থাকি আমাতে।  না ভাল লাগলে ফেলে দেবেন।


তাহলে গান কি? এ প্রশ্ন স্বাভাবিক।  


শব্দগুলি একের পর এক বসে যখন শুধু লয় নয় সুর-তাল-ছন্দে মিলে যায়, এক হয়ে যায়।  কবিতা তার নিজ গুনেই লিরিক হয়ে ওঠে।  কি সেই গুন?  কবিতা যখন সুরে মিলে যায়;  ঠিক যেমন চিনি মেশে জলে, নুন মেশে জলে; ধার করা শব্দে বলি - দিবে আর নিবে, মিলাবে মিলিবে, যাবে না ফিরে .....


শেষে ধন্যবাদ জানাই গুড মর্নিং আকাশের প্রোগ্রাম বিভাগ ও প্রোযোজককে।  
Post a Comment

Popular Posts