সাথে থাকবেন, নইলে পিছিয়ে পড়বেন

তৃতীয় পর্ব

আজ ভোঁদু শুরু করবেন মহাপন্ডিতের কথা দিয়ে।


তিনি অন্য জগতের মানুষ। একটু বেশিই বোঝেন সব বিষয়। তাই ভোঁদুর একটা বিশেষ দূর্বলতা। এছাড়াও মহাপন্ডিত সাধারণের তুলনায় বেশিই সৎ।
তখন তার রাজ্যে স্ক্যাম পর্ব চলছে। ভোঁদুর সাথে ফোনালাপ যথারীতি চালু। মহাপন্ডিত বললেন - অনেকেই টাকা হাতিয়েছে। এমনকি নাকি সেও, তবে তার পাশের রাজ্যে। পরিমানটা হাস্যকর - বড়জোর হাজার তিরিশেক।
শান্তনা দেবার জন্যই ভোঁদু প্রায় ঘোষণাই করেন - ওহ, ও নিয়ে মাথা ঘামাতে নেই। দেখতে পাওনা বিজ্ঞাপনী বাবুরা টাকাগুলো পকেটস্থ করেছেন সবচেয়ে বেশি এখন তারাই সবচেয়ে জোরে কথা বলছেন।
দেখতে তো পাও, সাহাবাবুর প্যান্টের পকেট ফুটো হচ্ছে আর ছাপা বাবুদের জামার পকেট ভর্তি হচ্ছে। একজন ছাপাবাবু তো আবার ঘোষণা করে বসেছেন যে তার রাজ্যে প্রচার করতে গেলে বিজ্ঞাপনের সিংহভাগটাই তাকে দিতে হয়।
সাধারনের টাকাগুলো ফেরৎ দেবেন কি? গরীব মানুষের টাকা। চোরের মা'র বড় গলা। তুমি মাথা ঘামিও না ওসব নিয়ে।
মহাপন্ডিত তাই শুনে একটু বল পান মনে - যাক তার অপরাধ এমন কিছু নয়।
এতো গেল এই কথা - আর একদিন মহাপন্ডিত শেয়ার করলেন এক অদ্ভুত কথা । এ দেশের এক বিখ্যাত ব্যক্তি, মাঝেমধ্যে "ইনজিনিয়ারিং বাবার" সাথে বসে কফি খান, উনি নাকি মাঝরাতে অনেকের ডেরায় হানা দেন। এক পুরোনো বামপন্থী বৃদ্ধ গায়ককে দক্ষিনপন্থী বানিয়ে দেন রাতের আঁধারে গোপনে তার ডেরায় হানা দিয়ে দিয়ে। কে জানে কে যে কোথায় দালালি করছেন !
এইসব শুনে ভোঁদু শুধুই অবাক হয়। দেশের প্রকৃত হাল হকিকৎ ভোঁদু কিছুতেই ধরতে পারে না। আরোও বেশি ধরতে পারে না তার প্রতিষ্ঠানের বড় ভোঁদুদের কার্যকলাপ।
আজ আরেক বড় ভোঁদুর কথা বলি - তিনি সবসময় চাঙ্গে থাকেন। তাই তার নাম - চাঙ্গা ভোঁদু। তার সাথীদের দিকে নজর ভাল। তাদের রাখেনও চাঙ্গে। সাথে এক জুড়ি আছেন। সব বিষয়ের সাজেশান তার থাকে।
ভোঁদুর গুরু নেহাত বলেছিলেন "কমিশন নিলে মিশন কম হয়ে যাবে" নইলে ভোঁদুও ঐ বড়-চাঙ্গে ভোঁদুর ফলোয়ার হতেন।
যাইহোক আজ এই পর্যন্ত। বাকিটুকু আবার পরে। পাঠকেরা একটু সবুর করবেন। তাড়াহুড়ো করে এই আত্মচরিত শেষ করা ভোঁদুর কাজ নয়। ধীরেধীরে নানান ভোঁদুগিরির কথায় আসবে ভোঁদু। বড় ভোঁদুর দল ছাড়াও আরেক দল বিচরন করেন সেখানে, নাম - বগলে-ফোঁড়া বাবু।

Comments

Popular Posts